You are here
Home > খেলা > খুব কাছাকাছি ইতিহাসও বাংলাদেশকে ড্র করার প্রেরণা যোগাতে পারছে না!

খুব কাছাকাছি ইতিহাসও বাংলাদেশকে ড্র করার প্রেরণা যোগাতে পারছে না!

Fallback Image

বাংলাদেশ দল হায়দ্রাবাদ টেস্টে শেষ পর্যন্ত ড্র করতে পারলে তা হবে জয়েরও বেশি কিছু! কারণ, ভারতের মাটিতে চতুর্থ ইনিংসে দাঁত কামড়ানো ১৪৩.১ ওভারের লড়াইয়ের পরও ২০১৫ সালে ম্যাচ ড্র করতে পারেনি তখন বিশ্ব র‍্যাংকিংয়ে এক নম্বরে থাকা দক্ষিণ আফ্রিকা। ভারতের বিপক্ষে চলমান একমাত্র টেস্টটিতে টাইগারদের হাতে আর ৭ উইকেট। তিন সেশনে বাকি ৯০ ওভার। এর মধ্যে দ্বিতীয় ইনিংসে খেলে ফেলেছে ৩৫ ওভার। ১২৫ ওভারের লড়াই করে যদি ড্র নিয়ে মাঠ ছাড়ে টাইগাররা সেটি ক্রিকেট ইতিহাসে নতুন এক সোনালি অধ্যায়ই লিখে ফেলবে।

রোববার চতুর্থ দিনশেষে একটু বেকায়দা অবস্থানে বাংলাদেশ। ৬ উইকেটে ৬৮৭ রানে প্রথম ইনিংস ঘোষণা করে ভারত। তারপর অধিনায়ক মুশফিকুর রহীমের বীরোচিত ১২৭ রানে ৩৮৮ রান বাংলাদেশের। তাদের ফলো অনে না ফেলে বিরাট কোহলির দল ব্যাটিংয়ে নেমে ৪ উইকেটে ১৫৯ রানে দ্বিতীয় ইনিংস ঘোষণা করল। ৪৫৯ রানের অসম্ভব টার্গেট সামনে রেখে লড়তে নেমে ৩ উইকেট পড়েছে। দলের রান ১০৩। সাকিব আল হাসান ২১ ও মাহমুদউল্লাহ ৯ রানে অপরাজিত। সোমবার খেলা শুরু হবে তাদের ব্যাটে।

শেষ দিনে ভারতের উইকেটে তিন সেশন রবিচন্দ্রন অশ্বিন, রবীন্দ্র জাদেজা জুটিকে সামলানো কঠিনতম ব্যাপার। ফিরে যান ২০১৫ সালের ডিসেম্বরে। দেখবেন ১৪৩.১ ওভার চতুর্থ ইনিংসে ব্যাট করলো দক্ষিণ আফ্রিকা। দেখবেন হাশিম আমলা ২৪৪ বল খেলে ২৫ করলেন। ২৯৭ বল খেলে এবি ডি ভিলিয়ার্স করলেন ৪৩। ৯৭ বলে ১০ ফ্যাফ ডু প্লেসির। কিন্তু হার এড়াতে পারেনি তখন বিদেশেও অপ্রতিরোধ্য হয়ে ওঠা দলটি।

তবে দিল্লিতে সেবার প্রোটিয়ারা ভারতের মাটিতে চতুর্থ ইনিংসে সবচেয়ে বেশি ওভার খেলার রেকর্ড গড়েছিল। ১৯৯৯ সালে তখনো সৌরভ গাঙ্গুলীর হাতে না পড়া ভারতের বিপক্ষে অবশ্য চতুর্থ ইনিংসে ১৩৫ ওভার ব্যাট করে ড্র করেছিল নিউজিল্যান্ড। মোহালির সেই রেকর্ড পরে দক্ষিণ আফ্রিকা ভেঙেছিল। কিন্তু ড্রও করতে পারেনি।

১৯৬৪ সালে মুম্বাইয়ে চতুর্থ ইনিংসে ১৩৪ ওভার ব্যাট করে ড্র করার ইতিহাস আছে ইংল্যান্ডের। বাংলাদেশ ড্র করতে পারলে ইতিহাসে ঠিক পরের জায়গাটিতে উঠে যাবে তাদের নাম। নিউজিল্যান্ড কানপুরে ১৯৭৬ সালে চতুর্থ ইনিংসে ১১৭ ওভার ব্যাট করে ড্র করেছিল। কিন্তু ১৯৬১ সালে কলকাতায় ১১৬ ওভার ব্যাট করেও হেরেছিল ইংল্যান্ড। ২০০৩ সালে চতুর্থ ইনিংসে নিউজিল্যান্ড ১০৭ ওভার টিকে থেকে ড্রর গৌরব পেয়েছিল। আবার ১৯৭৮ সালে তখন অপ্রতিরোধ্য ওয়েস্ট ইন্ডিজ ১০৫.১ ওভার ব্যাট করে ড্র করেছিল।

খুব কাছাকাছি ইতিহাসও বাংলাদেশকে ড্র করার প্রেরণা যোগাতে পারছে না! তেমন রেকর্ড নেই যে! যেটি আছে সেটি ২০০৩ সালের, নিউজিল্যান্ডের ১১৭ ওভার ব্যাট করে ড্র। তাদের চেয়ে আর মাত্র ৮ ওভার বেশি রাজিব গান্ধী স্টেডিয়ামে টাইগাররা টিকে থাকতে পারলেই লেখা হবে নতুন ইতিহাস। সাকিব-মাহমুদউল্লাহরা কি আমলা-ডি ভিলিয়ার্সদের ছাড়িয়ে যেতে পারবেন?

Similar Articles

Leave a Reply

Top