You are here
Home > ক্যাম্পাস > ভয়াল সেশনজটের রাক্ষুসে শিকার নজরুল বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা

ভয়াল সেশনজটের রাক্ষুসে শিকার নজরুল বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা

মামুনুর রহমান (বিশেষ প্রতিনিধি):  বাবা-মায়ের অনেক স্বপ্ন থাকে তাদের বিশ্ববিদ্যালয় পড়ুয়া সন্তানটিকে ঘিরে। এইতো কয়েকটা বছর পরেই সন্তান উচ্চশিক্ষিত হয়ে সংসারের হাল ধরবে। বয়সের ন্যুজ হয়ে যাওয়া বাবার কষ্ট লাঘব করবে,অসুস্থ মায়ের চিকিৎসা করাবে,ছোট ভাইটির পড়াশোনার দায়িত্ব নিবে। বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়া ঐ শিক্ষার্থীর চোখেমুখেও এরকম স্বপ্ন খেলা করে। মা ফোন করলে বলে, এইতো মা আর কয়টা দিন,তারপর,,,,,,,। কিন্তু বিশ্ববিদ্যালয়ে সেশনজট নামক এক রাক্ষুসে দানব ঐ সুখস্বপ্নকে চিবিয়ে খেয়ে সেখানে শুধুই হতাশা আর গ্লানিরই জন্ম দেয়।
জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম বিশ্ববিদ্যালয় যেন সেশনজটের এক সুবিশাল চত্ত্বর। এখানে তারুণ্যে ভরপুর শিক্ষার্থীদের শিক্ষাজীবন শেষ হতে হতে তারুণ্য আর থাকে না,প্রৌর খেলা করে।
বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রায় প্রতিটা ডিপার্টমেন্টেই একই অবস্থা। অনার্স-মাস্টার্স শেষ করে চাকরির বাজারে ঢুকতে ঢুকতেই চাকরির বয়স শেষের দিকে চলে যায়।
একটি সেমিস্টার শেষ করতে যেখানে ৬ মাস লাগার কথা সেখানে দেড় বছরেও সেমিস্টার শেষ হতে চায় না। অথচ বিশ্ববিদ্যালয়ে রাজনৈতিক অস্থিরতাও তেমন নয়। বলা যায় এদিক দিয়ে অনেক শান্ত একটা বিশ্ববিদ্যালয় এই নজরুল বিশ্ববিদ্যাল।
বিভিন্ন ডিপার্টমেন্টে সেশনজটগুলো মূলত তৈরী হচ্ছে শিক্ষকমন্ডলীদের অবহেলার কারণেই।
নজরুল বিশ্ববিদ্যালয়ের এই ভয়াবহ সেশনজটের বিরূদ্ধে বিশ্ববিদ্যালয়ের চারুকলা অনুষদের শিক্ষার্থীরা ১৯মার্চ রবিবার এক আন্দোলনে অবতীর্ণ হয়। সকাল সাড়ে দশটার দিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের চুরুলিয়া মঞ্চ থেকে আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা শান্তিপূর্ণ মৌন মিছিল নিয়ে ক্যাম্পাস প্রদক্ষিণ করে চারুকলা অনুষদের সামনে অবস্থান করে তাদের দাবীসমূহ শ্লোগানের মাধ্যমে জানান দেয়।
সঠিক সময়ে রেজাল্ট প্রকাশ,সেমিস্টার ৬ মাসে শেষ করাসহ সেশনজট কমানোর দাবী জানায় তারা।
এসময় চারুকলা বিভাগের বিভাগীয় প্রধান নগরবাসী বর্মণ(পার্থ), সহকারী অধ্যাপক মাসুম হাওলাদার, তপন কুমার সরকার, প্রভাষক মঞ্জুর এলাহী, কল্যাণাংশু নাহা উপস্থিত শিক্ষার্থীদের প্রতিনিধিদের নিয়ে বৈঠকে বসেন।
বৈঠক শেষে তারা উপস্থিত শিক্ষার্থীদের জানান যে এখন থেকে চারুকলা বিভাগের সেমিস্টার পরীক্ষা ৬ মাসের মধ্যেই শেষ করা হবে। কোন শিক্ষার্থীর ব্যক্তিগত সমস্যার কারণে সেমিস্টার পরীক্ষা পেছাবে না বলেও বৈঠকে সিদ্ধান্ত হয়।
চারুকলা অনুষদের আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা এসময় এ সিদ্ধান্ত মেনে নেন।
এদিকে চারুকলা অনুষদের শিক্ষার্থীদের সেশনজট বিরূধী আন্দোলনের ইতিবাচক ফলাফলের ঢেউ বিশ্ববিদ্যালয়ের সেশনজটে নাকাল অন্যান্য অনুষদগুলোর শিক্ষার্থীদের মাঝেও ছড়িয়ে পরেছে।

Similar Articles

Leave a Reply

Top