You are here
Home > বিবিধ > পড়ে আছে মায়ের নিথর দেহ, মৃত মায়ের বুকের দুধ খাওয়ার জন্যও প্রাণপণ চেষ্টা করে যাচ্ছে অবুঝ শিশুটি

পড়ে আছে মায়ের নিথর দেহ, মৃত মায়ের বুকের দুধ খাওয়ার জন্যও প্রাণপণ চেষ্টা করে যাচ্ছে অবুঝ শিশুটি

রেললাইনের পাশে পড়ে আছে মায়ের নিথর দেহ। কান্নাকাটি করেও মায়ের কোনো সাড়া পাচ্ছে না অবুঝ শিশুটি। এরই মধ্যে মৃত মায়ের বুকের দুধ খাওয়ার জন্যও প্রাণপণ চেষ্টা করে যাচ্ছে বাচ্চাটি।

হৃদয়স্পর্শী এই ঘটনা ঘটেছে ভারতের মধ্যপ্রদেশ রাজ্যে। গতকাল বুধবার সকালে রাজ্যের দামোহ জেলায় একটি রেললাইনের পাশে থেকে ওই নারীর লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ।

যুক্তরাজ্যের সংবাদমাধ্যম ডেইলি মেইল অনলাইন এ খবর জানিয়েছে।

মৃত্যুর কারণ শনাক্ত করতে ওই নারীর লাশ ময়নাতদন্তের জন্য মর্গে পাঠানো হয়েছে বলে পুলিশ জানিয়েছে। আর বাচ্চাটিকে স্থানীয় একটি হাসপাতালে নেওয়া হয়েছে।

সেই সঙ্গে স্থানীয় শিশুকল্যাণ কমিটিকে বিষয়টি জানানো হয়েছে।

মনু বাল্মিকী (২৭) নামের এক প্রত্যক্ষদর্শী বলেন, ‘আমরা এক নারীকে রেললাইনের পাশে পড়ে থাকতে দেখতে পেয়ে পুলিশে খবর দিই। কিন্তু যখন আমরা কাছাকাছি যাই, তখন দেখতে পাই একটি শিশু তার পাশে কান্নাকাটি করছে এবং তার মায়ের দুধ খাওয়ার চেষ্টা করছে। এই দৃশ্য আমাদের চোখে পানি এনেছিল।’

পুলিশ জানায়, তারা ঘটনাস্থলে পৌঁছে দেখতে পায় ওই নারীর লাশের চারপাশে মানুষ ভিড় করে আছেন। পাশেই তাঁর ১৭ মাস বয়সী বাচ্চাটি কান্নাকাটি করছে।

রেলওয়ে পুলিশের প্রধান কনস্টেবল নন্দ রাম বলেন, ‘বাচ্চাটি তার মায়ের জন্য কান্না করছিল এবং সে তার মায়ের কাছ থেকে কোনো প্রকার সাড়া পাচ্ছিল না। এ সময় বাচ্চাটি তার মায়ের বুকের দুধ খাওয়া শুরু করে।’

‘এই দৃশ্য দেখে আমরা মর্মাহত হয়েছি। এটা ছিল খুবই দুঃখজনক। বক্ষ উন্মুক্ত অবস্থায় ওই নারীর মৃতদেহ পড়ে আছে, আর তাঁর বাচ্চাটি মায়ের পাশেই বসে আছে। এটা এমন ঘটনা ছিল, যা এর আগে আমরা দেখিনি। এটা আমাদের জন্য ছিল খুবই আবেগাপ্লুত ব্যাপার।’

পুলিশ কর্মকর্তা বলেন, ‘আমরা ধারণা করছি, দুর্ঘটনায় ওই নারী নিহত হয়েছেন। তাঁর নাক ও কান থেকে রক্তক্ষরণ হচ্ছিল। আমরা তাঁর ঠিকানা খুঁজে বের করার চেষ্টা করছি। যাতে করে তাঁর পরিবারকে বিষয়টি জানানো যায়।’

পুলিশ কর্মকর্তা বলেন, ‘আমরা ধারণা করছি, দুর্ঘটনায় ওই নারী নিহত হয়েছেন। তাঁর নাক ও কান থেকে রক্তক্ষরণ হচ্ছিল। আমরা তাঁর ঠিকানা খুঁজে বের করার চেষ্টা করছি। যাতে করে তাঁর পরিবারকে বিষয়টি জানানো যায়।’

হাসপাতালের মুখপাত্র বলেছেন, ‘সকাল ১০টার দিকে বাচ্চাটিকে সেখানে নেওয়া হয়েছে। আমরা বাচ্চাটির শারীরিক পরীক্ষা করেছি, সে ঠান্ডাজনিত রোগে ভুগছে। তাকে ওষুধ দেওয়া হয়েছে। বাচ্চাটির অন্য কোনো সমস্যা নেই।’

Similar Articles

Leave a Reply

Top