You are here
Home > অর্থনীতি > দাম কমেছে পেঁয়াজের

দাম কমেছে পেঁয়াজের

পেঁয়াজের ঝাঁজ বাড়িয়ে দেয় খাবারের স্বাদ। তরি-তরকারি রান্নার একটি মৌলিক উপাদন হচ্ছে পেঁয়াজ। দফায় দফায় দাম বাড়ার পর প্রতিকেজি পেঁয়াজে দাম কমেছে ১০ টাকা।গত ৫ মাস ধরে প্রতিনিয়ত লাফিয়ে লাফিয়ে বেড়েছে পেঁয়াজের দাম। তবে শুক্রবার বাজারে গিয়ে দেখা গেছে, প্রতিকেজি দেশি পেঁয়াজে কমেছে ১০ টাকা।

রাজধানীতে এখন দেশি পেঁয়াজ বিক্রি হচ্ছে প্রতিকেজি ৭০ টাকায় আর ভারতীয় পেঁয়াজের ৫৫ টাকা দরে।
খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, পাঁচ মাস আগে দেশি পেঁয়াজের দাম ছিল ৩১ টাকা ৫০ পয়সা। ভারতীয় পেঁয়াজের দাম ছিল ২৫ টাকা ৭৫ পয়সা। পাঁচমাস ধরে বেড়েছে পেঁয়াজের দাম। পাইকারি ব্যবসায়ীরা বলছেন, অতিবৃষ্টির কারণেই বেড়েছে নিত্যপ্রয়োজনীয় এ পণ্যটির দাম।

গত জুন মাসে দেশি পেঁয়াজের দাম ছিল প্রতিকেজি ৩১ টাকা ৫০ পয়সা, জুলাই মাসে তা ছিল ৪০ টাকা, আগস্ট মাসে ৫৭ টাকা ৫০ পয়সা, সেপ্টেম্বরে ছিল ৫৫ টাকা ৫০ পয়সা। অক্টোবর মাসেই তা বেড়ে দাঁড়ায় ৭৩ টাকা ৫০ পয়সায়।

ভারত থেকে আমদানি করা পেঁয়াজের দাম গত জুনে ছিল ২৫ টাকা ৭৫ পয়সা, জুলাইয়ে ৩৬ টাকা ৫০ পয়সা, আগস্টে ৫৪ টাকা ৫০ পয়সা, সেপ্টেম্বরে ছিল ৫০ টাকা ৬৬ পয়সা। অক্টোবরে এসে দাঁড়ায় ৫৬ টাকা ৬০ পয়সায়।

এক পেঁয়াজ ব্যবসায়ী বলেন, দুই দিন দরে দেশি পেঁয়াজে কেজিপ্রতি ১০ টাকা কম দামে বিক্রি হচ্ছে। আবার বাড়ায় আশঙ্কায় ক্রেতারা বেশি করে কিনছে।

অবহাওয়া ঠিক থাকলে পেঁয়াজের দাম আরো কিছুটা কমে আসতে পারে বলেও জানিয়েছেন ব্যবসায়ীরা। তারা বলছে, নতুন পেঁয়াজ আসলে আরো দাম কমবে।

এ বিষয়ে শ্যামবাজারের কৃষি পণ্যের এক আড়ৎদার জানান, দেশে বন্যার কারণে অনেক পেঁয়াজ নষ্ট হয়েছে। আর পেঁয়াজের মৌসুমও শেষ। দাম কিছুটা কমেছে, তবে নতুন পেঁয়াজ আসলে আরো দাম কমবে।

পেঁয়াজ নিয়ে কথা হলে কনজুমারস অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশের (ক্যাব)`র ভাইস প্রেসিডেন্ট এস এম নাজের হোসাইন বলেন, ব্যবসায়ীরা কৃত্রিম সংকট তৈরি করে পেঁয়াজের দাম বৃদ্ধি করেছে। চাল, ডাল, তেলসহ অন্যান্য নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের দাম বৃদ্ধির পর সরকার দাম কমানোর উদ্যোগ নেয়। কিন্তু পেঁয়াজের দাম বৃদ্ধির পর, সরকারের কোনো পদক্ষেপ নেয়নি।

Similar Articles

Leave a Reply

Top