You are here
Home > শিল্প-সাহিত্য > কবিতা ভাবনা: সানজি সুলতানা

কবিতা ভাবনা: সানজি সুলতানা

সানজি সুলতানা:

দিনের পরতে পরতে হাজারোও

সৌন্দর্য থাকা সত্বেও সন্ধ্যার সাঁজ যেমন

সকল সৌন্দর্যে ম্লান-চাদর বসিয়ে নিজের

মহিমা ঘোষণা করে, তেমনি কবিতা ছন্দের

ব্যঞ্জনায় শব্দের ভাঁজে ভাঁজে বিন্যস্ত করার প্রয়াস

হয়তো। ব্যঞ্জনার পাশাপাশি যদি আরো কিছু

ব্যতিব্যস্ততা যোগ হয় তাহলে সেটি সৃষ্টির সম্পূর্ণতার

প্রশ্নে অন্যন্য। মনের ভাব ভাবনায় মিশে যেসব শাব্দিক

শরীর নির্মিত হয় সেখানে অর্থগত কিংবা ভাবনাগত পরিবর্তন

অবশ্যম্ভাবী নয় কি? শুধু এসব আক্ষরিক পরিবর্তন

নয় বরং সুচিন্তনের পাশাপাশি একক ব্যক্তিবোধ যেন

সবকিছুকে ছাপিয়ে না যায়। দূরপ্রসারী চিন্তার

জায়গাটুকু থাকার প্রয়োজনীয়তায় আসুক ভবিষ্যতের

আভাস। থাকতে পারে সমৃদ্ধ নিজস্ব অতীতের প্রত্নবিহারি

সুর। আসতে পারে নতুন কোন ভাবনার দায়। পুরোনো

গতানুগতিক দোলাচল থেকে বেরিয়ে নতুন চিত্রকল্প, রীতি

আর ভাবনায় বাড়তে পারে মনন জগতের পরিসর। যার

মধ্যে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ হলো কবিতার

চিত্রকল্প। বলা যেতে পারে, আধুনিক কবিতায় যেমন

একটি চিত্রকল্প দিয়ে শুরু হলে ফের সেখানে এসে, ফিরে

আসার ভীড় জমিয়েছে, এখন সেই চিন্তার জায়গায় ধরেছে

চির। চলমান সময়ে চিত্রকল্পের গতিশীলতা শুধু নির্দিষ্ট

স্থানে পরিভ্রমণ করেনা বরং মেতে উঠে সীমাহীনের ধূসরতায়।

সেসব চিত্রকল্পের সমগ্র আকাশে মুক্তচিন্তার স্বাধীনতা

থাকবে, এরকম ভাবনার অবকাশ অমূলক কিছু নয়। উত্তর-আধুনিকতাকে

আমরা শুধু যে কথায় লালন করি বিষয়টি এমন তো নয়, অথচ

আমাদের অগোচরে রয়েছে এর সুদূরপ্রসারী প্রভাব।

এর চতু্র্মুখী বেষ্টনি আমাদের যে কতখানি আষ্টেপৃষ্ঠে

বেধে রেখেছে, প্রভাবে আমাদের মাড়িয়ে দিচ্ছে, সেটি

কখনই তলিয়ে দেখা হয়ে ওঠে না। এর প্রভাবে ঘটছে

রুচির পরিবর্তন, এসেছে একাকিত্ব নামক যান্ত্রিক রুচির

সমাগম, আলাদা প্রকোষ্টের কারাগার, নিজেকে জাহির করার

প্রবণতা; ফলাফল হিসাবে উঠে আসছে ব্যক্তি মানুষের মানবিক অবক্ষয়।

যার প্রভাব চলমান সময়ের কবিতাতেও লক্ষ্যণীয়। প্রয়োজন

এই বিষয়টিকে সচেতনভাবে খেয়াল রাখা।সামগ্রিক চিন্তা কি

জরুরী নয়? কবিতায় আসতে পারে নিজস্ব শৈলীও। এটি অবশ্যই

কবির রুচিবোধের সাথে সম্পৃক্ত। তবে সে শৈলীতে নিরীক্ষার

স্রোত কতখানি সক্রিয় তার নিবিড় অনুধ্যান উপেক্ষিত হতে

পারে না। কবিতার ভাষাগত চিন্তায় প্রয়োজন মাতৃভাষার জোর।

যতটা সম্ভব ভাষাগত নিজস্বতা। ভাষার সৌন্দর্যবর্ধনে সুন্দর এবং সঠিক

শব্দের নির্বাচন কবিতায় এনে দিতে পারে আনকোরা

আস্বাদ, এর দায় কবিতা কর্মীর।

Similar Articles

Leave a Reply

Top